অবসর-এ প্রকাশিত পুরনো লেখাগুলি 'হরফ' সংস্করণে পাওয়া যাবে।


প্রিয় চরিত্র

অবসর বিশেষ সংখ্যা এপ্রিল ১৫, ২০১৮

সম্পাদকীয়

মুখ্য সম্পাদকের আদেশানুসারে নতুন ইংরেজী বর্ষের প্রথম অবসর বার করার দিন স্থির হয়েছিল বাংলা নববর্ষ। মোটামুটি আলোচনা করে যখন বিষয় নির্বাচিত হল, অতিথি সম্পাদকেরা নিজেরাই একটু অস্থিরতাতে ভুগছিলেন। ‘প্রিয় চরিত্র’ – ব্যাপারটায় একটু কেমন যেন সাবেকী ইস্কুলের দিনগুলোর সেই প্রবন্ধ রচনার গন্ধ জড়ানো! তারপরে ভাবা গেল সেই বহু চর্চিত বাক্যবন্ধ –‘ভালবাসা কারে কয়?’ সেই কোন ছোটবেলা থেকেই আমরা শুরু করেছি সাহিত্য পাঠ, জমা তো হয়েছে অনেক কিছুই। তাই অনুরোধ করা হল লেখকদের – খুঁজুন না তাদের – যারা আপনাদের ‘মনের জানালা ধরে উঁকি দিয়ে গেছে’। 
লেখকরাও শুরু করলেন – ‘রূপসাগরে ডুব দিয়ে অরূপরতন’ খোঁজার। উঠে এল বেশ কিছু মনিমুক্তো।
দিলীপ দাস শুরু করেছেন একেবারে বৈদিক সভ্যতা থেকে – সে যুগের প্রাজ্ঞ নারীরা, গার্গী ও মৈত্রেয়ী তাঁর চর্চার বিষয়। বাংলা সাহিত্য তো আদি সংস্কৃতের কাছে ঋণ স্বীকার করেই থাকে, তাই তাঁদের প্রাপ্য শ্রদ্ধার্ঘ দিয়েই আমাদের যাত্রা শুরু।
পরের লেখা, শমিতা দাস দাশগুপ্তর প্রিয় চরিত্র এক প্রতিবাদী নারী। ‘প্রথম প্রতিশ্রুতি’র সত্যবতী। এই ধ্রুপদী চরিত্রকে আবার ফিরে দেখা তাঁর বলিষ্ঠ অথচ স্বাদু কলমে।
এরপরেই অতিথি সম্পাদকদ্বয়ের পালা। জুটির একজন ভাস্কর বসু জানিয়েছেন বুদ্ধদেব গুহর সৃষ্ট এক জনপ্রিয় চরিত্রের প্রতি তাঁর গভীর অনুরাগের কথা। অন্যজন প্রদীপ্ত ভট্টাচার্য্য, একটি অন্যধারার চরিত্র প্রেমাঙ্কুর আতর্থীর ‘স্থবির’-এর আশ্চর্য গন্ডীছুট জীবনে আহৃত বহুবিচিত্র অভিজ্ঞতার বলে ‘মহাস্থবির’ হয়ে ওঠবার পরিব্রজ্যায় উঁকি দেওয়ার চেষ্টা করেছেন।  
‘ঘনাদা’ নামেই অধিক পরিচিত রামকৃষ্ণ ভট্টাচার্য সান্যাল মানুষটি আসলে মনে মনে খুবই নবীন। সুদক্ষ ডুবুরির মতো তিনি ডুব দিয়েছেন সুদূর কৈশোরে – ঘনাদা ও টেনিদার হাত ধরে।  
মুখ্য সম্পাদক সুজন দাশগুপ্তর সরস কলমের সঙ্গে পাঠকেরা খুবই পরিচিত। তিনি পুনরাবিষ্কার করলেন শিব্রাম চকরবরতীকে। মহানন্দে, মহাধন্দে পড়েছেন তিনি – কে বেশী প্রিয়? মানুষ না লেখক? ‘দরকার নেই হিসেব দেবার’ – তাঁর লেখাতে শুধুই আনন্দের প্রকাশ।
সর্বশেষ লেখাটি সাহিত্যিক শেখর মুখোপাধ্যায়ের।
তাঁর এই বিস্তারিত লেখাটি পাঠকরূপে বাংলা সাহিত্যে তাঁর পথচলার এক দলিল। সম্পূর্ণ অকপট ভাষাতে তিনি জানিয়েছেন তাঁর ভাল লাগা, খারাপ লাগার কথা। লেখার পরতে পরতে তিনি ছড়িয়ে দিয়েছেন তাঁর জীবনচর্চা -  কিভাবে সাহিত্য তাঁর জীবনকে প্রভাবিত করেছে। তাঁর অজস্র অনুরাগীর কাছে এই লেখা এক অনন্য সম্পদ – এ আমাদের দৃঢ় ধারণা।
সঙ্গে রইল অবসরের নিয়মিত বিভাগ।
নববর্ষের পুণ্যদিনে আবার প্রকাশিত হতে পেরে অবসর ‘নব আনন্দে’ জাগ্রত। আশা করি অবসর অনুরাগীদের প্রত্যাশা পূরণে ব্যর্থ হবে না।

ভাস্কর বসু

প্রদীপ্ত ভট্টাচার্য্য



 

 

Copyright © 2018 Abasar.net. All rights reserved.