প্রথম পাতা

শহরের তথ্য

বিনোদন

খবর

আইন/প্রশাসন

বিজ্ঞান/প্রযুক্তি

শিল্প/সাহিত্য

সমাজ/সংস্কৃতি

স্বাস্থ্য

নারী

পরিবেশ

অবসর


অবসর-এ প্রকাশিত পুরনো লেখাগুলি 'হরফ' সংস্করণে পাওয়া যাবে।


বিশেষ বিজ্ঞান সংখ্যা

বিশেষ বিজ্ঞান সংখ্যা - পনেরোই এপ্রিল ২০১৭

 

উপেক্ষিত বৈজ্ঞানিক রাধানাথ শিকদার

দীপক সেনগুপ্ত



বাল্যকাল ও শিক্ষার্জন

বিশ্বায়নের গতিময়তা ও কর্মচাঞ্চল্যে জনমানস এখন বহুলাংশে বিক্ষিপ্ত। ফিরে দেখার সময় কম। শিল্প, সংস্কৃতি, সাহিত্য, বিজ্ঞান ইত্যাদি বিষয়ে আমাদের প্রাচীন উৎকর্ষ ও অবদানের কথা আমরা সেভাবে মনে রাখিনি, স্বীকৃতি জানাই নি। সে অবকাশও আমাদের নেই। বিজ্ঞানের ক্ষেত্রে বিশেষ করে এই ঔদাসীন্য ও বিস্মৃতি বড় বেশি চোখে পড়ে। এরকম একটি বিস্মৃতপ্রায় নাম রাধানাথ শিকদার, অথচ তিনিই ছিলেন আধুনিক ভারতের প্রথম গণিতজ্ঞ ও বৈজ্ঞানিক।

তিতুরাম শিকদারের বড় ছেলে রাধানাথ জন্মেছিলেন ১৮১৩ খ্রিষ্টাব্দের অক্টোবর মাসে। সঠিক তারিখ জানা যায় না, মায়ের নামও অজানাই থেকে গেছে। জোড়াসাঁকোর শিকদার পাড়ায় ব্রাহ্মণ বংশে রাধানাথের জন্ম। রাধানাথের ছিল এক ভাই ও তিন বোন। ভাই শ্রীনাথ ছিল দু’বছরের ছোট। শিকদারেরা মুসলমান আমলে প্রধান শান্তিরক্ষক হিসাবে কাজ করত। এই কাজ বংশপরম্পরায় করার জন্য তাদের মধ্যে লেখাপড়ার চর্চা অনেক কমে এসেছিল। প্রথমে রাধানাথ গ্রামেরই পাঠশালায় এবং পরে বাঙালী খৃষ্টান কমল বসুর স্কুলে ভর্তি হন। রাধানাথ তার ডায়েরিতে নিজের পড়াশোনার কথা ও তখনকার শিক্ষাদানের পদ্ধতি সম্বন্ধে সবিস্তারে লিখে গেছেন। সেখান থেকেই কিছু অংশ দেখে নিলে শিক্ষাজগতে অনুসৃত সমসাময়িক রীতিনীতি সম্বন্ধেও অনেক তথ্য নির্ভুল ভাবে জানা যাবে –

“ ১৮২৪ খৃঃ আমি হিন্দু কালেজের [Anglo-Indian College] নবম বা সর্ব্বনিম্ন শ্রেণিতে প্রবিষ্ট হই। উচ্চ শ্রেণিস্থ বালকেরা নিম্ন শ্রেণিস্থ বালকগণের উপর অযথা ক্ষমতা চালাইতেন; উহার কারণ এই যে তখন অল্প সংখ্যক শিক্ষক ছিলেন, উচ্চতম শ্রেণির বালকেরা নিম্ন শ্রেণির বালকগণকে শিক্ষা দিতেন। উচ্চশ্রেণিস্থ বালকেরা শিক্ষকের স্থলাভিষিক্ত হইয়া, বালকস্বভাবসুলভ অভিলাষ, অনভিজ্ঞতা, অথবা ক্রোধের বশবর্ত্তী হইয়া নিম্নশ্রেণিস্থ বালকগণকে নির্দয়রূপে প্রহার করিতেন; এবং প্রায় তাহারা কেহই তজ্জন্য শাস্তি পাইতেন না। ... সমবয়স্ক বালকগণ আপনাদিগের মধ্যে বন্ধুত্ব সংস্থাপন করিত। এই প্রকার বন্ধুত্ব নির্ব্বাচনকালে স্বীয় স্বীয় পাপ প্রবৃত্তি ও পাপ পথানুসরণ বিষয়ে সাহায্য করিত। এই জন্য উচ্চশ্রেণিস্থ অল্পবয়স্ক বালক নিম্নশ্রেণিস্থ সমবয়স্ক বালকগণের সহিত সখ্য ভাবে কাল কাটাইত। তখনকার কালেজে ছাত্রদিগের বিদ্যা অতি অল্প হইত, ইহাতেই তাহারা গণনীয় ও মাননীয় হইত। ... আমি এই অবস্থাতে নবম শ্রেণিতে কাল কাটাইয়া পর বৎসর ৭ম শ্রেণিতে উন্নীত হই। D’ Ansleme সাহেব, ৪ জন সহকারী শিক্ষক ও উচ্চশ্রেণিস্থ বালকগণ শিক্ষাকার্য্য নির্বাহ করিতেন। পর বৎসর ৫ম শ্রেণিতে উন্নীত হই। এই সময়ে শিক্ষা প্রণালীর পরিবর্ত্তন ঘটিল। Mr. D’ Ansleme প্রথম শ্রেণির শিক্ষা প্রদান করিতেন ও সমস্ত বিদ্যালয়ের তত্ত্বাবধায়ক ছিলেন। Mr. Molles ২য় ও ৫ম শ্রেণির শিক্ষক হইলেন। Mr. Pascal প্যাসকেল তৃতীয় ও ষষ্ঠ শ্রেণীর শিক্ষক হইলেন। Mr. Forme ফর্ম্মি ৪র্থ ও ৭ম শ্রেণীর শিক্ষক হইলেন। ... আমি মলিস (Mollis ) সাহেবের নিকট ইংরাজি শিক্ষা করি। ... ১৮২৬ খৃষ্টাব্দে আমি ৪র্থ শ্রেণীতে উন্নীত হই এবং ডিরোজিও সাহেবের অধীনে উপদেশ গ্রহণ করি”। ......

“ দুই বৎসর পরে ২য় শ্রেণীতে উন্নীত হই। এই বৎসর হইতে রস (Ross ) সাহেবের বক্তৃতা শ্রবণ করিতে আরম্ভ করি। তিনি ছাপান গ্রন্থ পড়িয়া যাইতেন এবং কোন কোন দিন কেবল বৈজ্ঞানিক পরীক্ষা (experiment) দেখাইতেন, তাঁহার সে বক্তৃতা কাহারও হৃদয়গ্রাহী হইত না। কলেজের সকল শিক্ষক অপেক্ষা টাইটলার সাহেবের শিক্ষাপ্রণালী অতি উত্তম। তিনি প্রশ্নচ্ছলে শিক্ষা দিতেন। ...... শেষ তিন বৎসর আমি রস ও টাইটলার সাহেবের বক্তৃতা শ্রবণ করি। ১৮৩০ খৃঃ অব্দে টাইটলার সাহেবের নিকট গণিত শাস্ত্র শিক্ষা করি। এই বৎসর হইতে উচ্চ গণিতের শিক্ষা আরম্ভ হয়। এই বৎসর ইঁহার নিকট নিউটনের প্রিন্সিপিয়া (Newton’s Principia ) গ্রন্থের প্রথম ভাগ অধ্যয়ন করি। পর বৎসর সাহেবের বক্তৃতাশ্রবণ ও বাটিতে নিজে চেষ্টা করিয়া উচ্চ গণিতের কতক কতক বিষয়ে জ্ঞান লাভ করি।”

... “সে সময়ে কলেজে গণিত শিক্ষা উত্তম রূপ হইত। যে সকল বিষয় অধীত হইত এক্ষণকার গণিত শাস্ত্রে যাহারা এম. এ. পরীক্ষা প্রদান করেন তাঁহাদিগের পঠিতব্য বিষয় অপেক্ষা ঐ গুলি কোন অংশে ন্যূন ছিল না।”

রাধানাথ এবং ভাই শ্রীনাথ দু’জনেই ছিলেন কৃতী ছাত্র এবং মাসিক ষোল টাকা করে বৃত্তি পেতেন। রাধানাথের কলেজে পড়বার খরচ না লাগলেও তার অভ্যাস ছিল বই কেনা। অন্য জায়গা থেকে বই যোগাড় করলে সেটা বেশিদিন তিনি নিজের কাছে রাখতে পারতেন না। বইয়ের দামও ছিল খুব বেশি এবং এদেশে ছিল দুষ্প্রাপ্য। “কালেজের অধ্যক্ষেরা ছাত্রদিগের জন্য ইংলন্ড হইতে পুস্তক আনাইয়া দিতেন।” ধরে নেওয়া যায় বই কিনতেই রাধানাথের বৃত্তির টাকা নিঃশেষ হয়ে যেত। সে সময়ে ডেভিড হেয়ার ছিলেন কলেজের অধ্যক্ষ কমিটির সদস্য, গণিত বিষয়ক অনেক বই দিয়ে তিনি রাধানাথকে সাহায্য করেছিলেন।

ইংরাজি ভাষায় রাধানাথের ব্যুৎপত্তি ছিল অসাধারণ। ১৮৩০ খ্রিষ্টাব্দের ১৭ই ফেব্রুয়ারি মাত্র সতের বছর বয়সে কলকাতার টাউন হলে সেক্সপীয়ারের ‘অ্যাজ ইউ লাইক ইট’ নাটক থেকে ওরল্যান্ডোর সংলাপ আবৃত্তি করে প্রশংসা অর্জন করেছিলেন রাধানাথ। কিছু গ্রীক ও ল্যাটিন ভাষাও তিনি শিক্ষা করেছিলেন। গণিতের শিক্ষক জন টাইটলার ছিলেন সংস্কৃত পাগল লোক। তারই উৎসাহে রাধানাথ সংস্কৃত শিক্ষা করেন এবং এ বিষয়ে তিনি যথেষ্ট জ্ঞান অর্জন করেছিলেন।

রাধানাথ শিকদার

তিনি লিখেছেন –“কালেজ ছাড়িয়া আমার ইংরাজি বৈজ্ঞানিক গ্রন্থ সংস্কৃত ভাষায় অনুবাদ করিবার ইচ্ছা বলবতী হয়। তজ্জন্য সংস্কৃত ভাষা শিক্ষা করিতে আরম্ভ করি।” কিন্তু এ কাজ তার আর হয়ে ওঠে নি। কারণ, সাত বছর দশ মাস পড়াশোনা করে পাঠ অসমাপ্ত রেখেই তিনি কলেজ ছেড়ে দেন। যথেষ্ট উৎসাহী হওয়া সত্বেও কলেজ ছাড়ার পিছনে তার পারিবারিক অর্থকষ্টই দায়ী ছিল বলে মনে করা হয় কারণ, তিনি লিখেছেন –“কলেজে একমনে পড়িতে পাইতাম না, একবার পড়ার কথা মনে পড়িত, পরক্ষণেই বাটিতে ফিরিয়া যাইয়া কি খাইব, মা বুঝি এখনও কিছু খান নাই, এই সকল ভাবনা মনে উত্থিত হইয়া পড়ার ব্যাঘাত ঘটিত।” ১৮৩২ খ্রিষ্টাব্দে রাধানাথ পড়াশোনায় ইতি টেনে কাজে যোগদান করেন। তিনি লিখেছেন –“১৮৩২ খৃঃ আমি Great Trigonometrical Survey of India আফিসে কম্পিউটার (Computor) নিযুক্ত হইয়া আরও গণিত সম্বন্ধীয় গ্রন্থ অভ্যাস করি। এক্ষণে (৭ই অক্টোবর ১৮৩২) আমি Surveyor (সারভেয়ার) নিযুক্ত হইয়া Serunge Base line এ [ভূপাল] কার্য্য করিবার নিমিত্ত কলিকাতা হইতে ১৫ অক্টোবর যাত্রা করিব। এক্ষণে আমার সংস্কৃত পাঠের ব্যাঘাত হইবে বটে, কিন্তু কলিকাতায় ফিরিয়া আসিয়া পুনর্ব্বার সংস্কৃত পড়িতে আরম্ভ করিব।”

উল্লেখ করা যেতে পারে যে রাধানাথ শিকদার এবং রাজনারায়ণ বসাকই ছিলেন প্রথম দুই ভারতীয় যারা নিউটনের প্রিন্সিপিয়া পড়েছিলেন। রাধানাথের গণিতে ব্যুৎপত্তি এবং মৌলিক চিন্তার পরিচয় মেলে যখন ছাত্রাবস্থাতেই তার দু’টি বৃত্তের ওপর স্পর্শক রেখা (tangent) অঙ্কন করার একটি নতুন পদ্ধতি Gleanings in Science (Vol. III, 1831) পত্রিকায় প্রকাশিত হয়।

ডিরোজিওর (Henry Louis Vivian Derozio ) মুক্তমনের দৃষ্টিভঙ্গী এবং ধর্ম ইত্যাদি বিষয়ে প্রচলিত ধ্যান ধারণার রীতি কাটিয়ে উঠে নিজের মতে অবিচল থাকার দৃঢ়তা ও বিদ্রোহী মনোভাব রাধানাথের মনে প্রভাব বিস্তার করেছিল। ডিরোজিও ১৮০৯ সালের ১৮ই এপ্রিল কলকাতাতেই জন্মেছিলেন। মাত্র ১৭ বছর বয়সে হিন্দু কলেজে সহকারী প্রধান শিক্ষকের পদে যোগদান করেন। তার দেশপ্রেম ও ছাত্রদের প্রতি গভীর ভালবাসায় একদল ছাত্র-যুবক তার ভক্ত হয়ে উঠেছিল। এদের মধ্যে ছিলেন রামগোপাল ঘোষ, দক্ষিণারঞ্জন মুখোপাধ্যায়, রাধানাথ শিকদার, রসিক কৃষ্ণ মল্লিক, গোবিন্দচন্দ্র বসাক, অমৃত লাল মিত্র, মাধবচন্দ্র মল্লিক, মহেশচন্দ্র ঘোষ, হরচন্দ্র ঘোষ, শিবচন্দ্র দেব, কৃষ্ণ মোহন বন্দ্যোপাধ্যায়, রামতনু লাহিড়ী প্রমুখ ব্যক্তিবর্গ। ‘আর্য্যদর্শন’ পত্রিকা থেকে কিছু অংশের উদ্ধৃতি দেওয়া যাক – “ডিরোজিওর শিষ্যদল সকলেই দেশের এক একটি রত্ন ছিলেন। তাঁহারা যে কোন প্রকারে হউক দেশের উপকার সাধনে যত্নবান ছিলেন। তাঁহারা সততার পরাকাষ্ঠা প্রদর্শন করিয়াছেন। যে সময়ে উৎকোচ গ্রহণ ন্যায্য পাওনার সামিল ছিল, সেই সময়ে ইঁহারা প্রভূত ধনের লোভ সংবরণ করিয়া দেখাইয়াছেন, উৎকোচ গ্রহণ মহাপাপ।” এই যুবক-দল ‘ইয়ং বেঙ্গল’ নামে অভিহিত হতেন। মাত্র ২২ বছর বয়সে কলেরায় আক্রান্ত হয়ে ডিরোজিও মারা যান। তার স্মৃতির প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে ভারত সরকার ২০০৯ সালের ১৫ই ডিসেম্বর একটি ডাক টিকিট প্রকাশ করেছে।

কর্মজীবন

রাধানাথ ‘গ্রেট ট্রিগোনোমেট্রিক্যাল সার্ভে’ অফিসে ১৮৩১-এর ১৯শে ডিসেম্বর কাজে যোগদান করেন। Great Trigonometrical Survey (G.T.S.) নিয়ে দু’একটি কথা বলা অপ্রাসঙ্গিক হবে না। এটি ছিল ‘সার্ভে অব ইন্ডিয়া’র অধীনে একটি প্রকল্প। উদ্দেশ্য ছিল কোম্পানির রাজত্বের সীমানা নির্ধারণ করা। প্রশাসনিক, সামরিক ও রাজনৈতিক কারণেই এর প্রয়োজন দেখা দিয়েছিল। ১৮০৬ খ্রিষ্টাব্দে কর্ণেল উইলিয়াম ল্যামটন (William Lambton) ভারতের দক্ষিণ দিক থেকে উত্তরে নেপাল পর্যন্ত দ্রাঘিমার কিছুটা অংশের জরিপ ও দূরত্ব নির্ধারণের কাজ শুরু করেন। প্রথমে ভাবা হয়েছিল এটি শেষ করতে সময় লাগবে ৫ বছর, পরে সেটা ৬০ বছরে দাঁড়িয়ে যায়। সমস্ত ভারতেই জরিপের কাজ করার জন্য ল্যামটনের একটি প্রস্তাব কোম্পানীর অনুমোদন পেলে জরিপের কাজটিকে সুপ্রিম কোর্টের অধীনে নিয়ে আসা হয় এবং ১৮১৮ সালের ১লা জানুয়ারি থেকে প্রকল্পটির নাম হয় ‘দি গ্রেট ট্রিগোনোমেট্রিক্যাল সার্ভে’ (G.T.S.)। জর্জ এভারেস্ট (George Everest) শুরুতে ল্যামটনের অধীনে কাজ করলেও ১৮২৩ সালের ২০শে জানুয়ারি ল্যামটনের আকস্মিক মৃত্যুর পর তিনিই G.T.S.–এর সুপারিনটেনডেন্ট হন। রাত্রিবেলাও একটি বিশেষ ধরণের বাতি জ্বেলে জরিপের কাজ হত। এ কাজের জন্যই এভারেস্টই উঁচু উঁচু টাওয়ার বা মিনার তৈরি করিয়েছিলেন। এরকম বহু মিনার বিভিন্ন জায়গায় আজও চোখে পড়ে। হঠাৎ অসুস্থ হয়ে ১৮২৫-এর নভেম্বর মাসে এভারেস্ট ইংল্যান্ডে চলে যান। ১৮৩০-এ ফিরে এসে ভারতের সারভেয়র জেনারেল (Surveyor General ) নিযুক্ত হন এবং নতুন উদ্যমে G.T.S. এর কাজে লেগে যান।

ভূপৃষ্ঠের একটি অঞ্চলকে পরস্পর সংলগ্ন কতকগুলি ত্রিভুজে ভাগ করে নিয়ে ত্রিভুজগুলির পরিমাপ ও জরিপ করার পর বিভিন্ন অঞ্চলের ভৌগোলিক বৈশিষ্ট, দূরত্ব ইত্যাদি বিষয়ক তথ্য সংগ্রহ করে একত্রিত করলেই পৃথিবীর মানচিত্র তৈরির প্রাথমিক প্রস্তুতি শেষ করা যায়। এই ত্রিভুজগুলির বাহুর দৈর্ঘ অনেক বেশি হওয়ায় ভূপৃষ্ঠের বক্রতার জন্য ত্রিভুজের বাহুগুলি সরল রেখা হয় না। এ সংক্রান্ত মাপজোকের জন্য স্কুলের নিম্ন শ্রেণির জ্যামিতির জ্ঞান যথেষ্ট নয়। এর জন্য প্রয়োজন ‘স্ফেরিক্যাল ট্রিগোনোমেট্রি’ (spherical trigonometry) । পৃথিবীর কেন্দ্র দিয়ে যায় এমন একটি তল (plane) দিয়ে যদি পৃথিবীকে দু’ভাগ করে ফেলা যায়, তবে পৃথিবীর উপরিভাগে যে বৃত্তটি তৈরি হয় সেটাকে বলে গ্রেট সার্কেল (great circle)। এই বৃত্তের একটি অংশকে গ্রেট আর্ক (great arc) বলে। প্রযুক্তির যে বিষয়টি দিয়ে এই পরিমাপ বা জরিপ করা হয় তাকে বলে জিওডেসি (Geodesy)।

এভারেস্ট দেখলেন এই কাজের জন্য প্রয়োজন একদল লোকের, যাদের পদার্থবিদ্যা ও গণিতে পারদর্শিতা রয়েছে। তিনি উচ্চশিক্ষার পীঠস্থান হিন্দু কলেজের (পরে প্রেসিডেন্সি কলেজ) শরণাপন্ন হলেন। গণিতের শিক্ষক জন টাইটলার রাধানাথের নাম পাঠিয়ে দেন।

জর্জ এভারেস্ট

১৮৩১ সালের শেষদিকে এভারেস্ট আট জন বাঙালী ছাত্রকে কম্প্যুটার হিসাবে নিয়োগ করেন। প্রাথমিক বেতন ছিল মাসে ৪০ টাকা। কিছু পরে ১৯শে ডিসেম্বর রাধানাথ কাজে যোগ দেন। অল্পকালের মধ্যেই দেখা গেল যে রাধানাথের গণিতের জ্ঞান অনেক উচ্চ মানের। তাকে G.T.S. –এর সাব-অ্যাসিস্ট্যান্ট পদে নিয়োগ করা হয়। অবশ্য এই আটজনের মধ্যে রাধানাথ ছাড়া আর কেউই G.T.S.-এ শেষ পর্যন্ত টিকে থাকেন নি।

জি. টি. এস.-এ দুটি বিভাগ ছিল; একটি জরিপ বিভাগ ও অন্যটি গণনা বিভাগ। জরিপ বিভাগের কর্মীরা তাদের পর্যবেক্ষণ ও তথ্য গণনা বিভাগে পাঠালে সেখানে সেসব তথ্য নির্ভুল কিনা সেটা খতিয়ে দেখা হত। এভারেস্ট রাধানাথের গণিতের জ্ঞান যথেষ্ট উঁচু মানের বলেই মনে করতেন। এভারেস্টের কাছে রাধানাথ জরিপের বেশ কিছু তত্ত্ব ও প্রযুক্তির কাজ শিখে নেন। সাধারণ চেন কাজে লাগিয়ে জরিপের কাজ করলে, লব্ধ দূরত্বের শুদ্ধতা ও সঠিকতা বজায় রাখার জন্য কয়েকটি সংশোধন করার প্রয়োজন হয়। এর মধ্যে একটি হল বিভিন্ন ঋতুতে তাপমাত্রার হ্রাস বৃদ্ধির সঙ্গে লোহার চেনের দৈর্ঘের পরিবর্তনজনিত সংশোধন। এটি দূর করার জন্য যে উন্নত পদ্ধতি আবিষ্কৃত হয়েছিল, সেটি ছিল ‘কোলবি বার’ (Colby Bar ) বা ‘কম্পেনসেটিং বার সিস্টেম’ (Compensating Bar System )। এই পদ্ধতিতে চেনটি সম্পূর্ণ লোহা দিয়ে তৈরি না করে লোহা ও পিতলের সংযুক্ত পাত দিয়ে তৈরি হয়। তাপমাত্রার পরিবর্তনের সঙ্গে একটি ধাতুর প্রসারণ অন্যটির সঙ্কোচনের সঙ্গে যুক্ত হয়ে যাওয়ায় তাপমাত্রা জনিত সংশোধনের প্রয়োজন হয় না। এভারেস্ট ইংল্যান্ডে থাকার সময়েই এই পদ্ধতি আয়ত্ত করে নেন। আয়ারল্যান্ডে এই পদ্ধতি সাফল্যের সঙ্গে ব্যবহৃত হবার পর তিনি ঠিক করেন ভারতে ফিরে তিনি এই পদ্ধতি কাজে লাগিয়ে জরিপ করবেন। ১৮৩১ সালে একটি নতুন কমপ্যুটিং বিভাগ খোলা হয় ; ডি. পেনিং (de Penning ) ছিলেন সেখানে চিফ কমপ্যুটার। সে বছরেই এভারেস্টের নেতৃত্বে ব্যারাকপুর ট্রাঙ্ক রোডের উপর দুটি মিনারের দূরত্ব পরিমাপের মধ্য দিয়েই কোলবি বার পদ্ধতির সার্থক প্রয়োগ ঘটে, রাধানাথও এই কাজের সঙ্গে যুক্ত ছিলেন। নতুন পদ্ধতিটি তিনি ভালই রপ্ত করে নিয়েছিলেন।

এভারেস্ট রাধানাথের নিষ্ঠা, উদ্ভাবনী ক্ষমতা ও কর্মকুশলতা সম্বন্ধে অতি উচ্চ ধারণা পোষণ করতেন। এভারেস্টের মুখ থেকে কারো প্রশংসা খুব কমই শোনা যেত, কিন্তু রাধানাথ ছিলেন ব্যতিক্রম। ১৮৩৮ সালে তিনি রাধানাথ সম্বন্ধে বলেছিলেন ভারতে এদেশের বা ইউরোপের এমন কেউ নেই যিনি রাধানাথের সঙ্গে তুলনীয়। গণিত বিষয়ে তার সমকক্ষ এদেশে কেউ নেই, এমন কি ইউরোপেও খুব কমই আছে। রাধানাথের উপর এভারেস্ট এতটাই নির্ভর করতেন যে বাবার সঙ্গে দেখা করার জন্য রাধানাথকে ছুটি দিতেও তার ইচ্ছা ছিল না; বরং এভারেস্ট চাইতেন তার বাবাই এসে যেন রাধানাথের সঙ্গে দেখা করেন। এ প্রসঙ্গে ১৮৪১ সালের ৩রা জুলাই দেরাদুন থেকে রাধানাথের বাবা তিতুরামকে লেখা এভারেস্টের একটি চিঠি ছিল –“I wish I could have persuaded you to come to Dehra Dun for not only it would have given me the greatest pleasure to show you personally how much I honour you for having such a son as Radhanath, but you yourself have, I am sure, been infinitely gratified at witnessing the high esteem in which he is held by his superiors and equals.”

রাধানাথের সাহায্য নিয়ে এভারেস্ট হায়দ্রাবাদের বিদর থেকে মুসৌরির ব্যানোগ পর্যন্ত প্রায় ৮৭০ মাইল দূরত্বের গ্রেট আর্কটি জরিপ করে ফেলেন। এই কাজটি সম্বন্ধে হেনরী লরেন্সের অভিমত হল – “a measurement exceeding all others as much in accuracy as in length.” সি. আর. মার্কহ্যামের (C. R. Markham ) মতে – “one of the most stupendous works in the whole history of science.” এসব মন্তব্যের মধ্যে অতিশয়োক্তি নেই, কারণ দেশের তৎকালীন অবস্থায় এধরণের জরিপের কাজে অমানুষিক পরিশ্রম করতে হত। রাধানাথ যে শুধু গণিত ও পদার্থবিদ্যায় পারদর্শী ছিলেন তাই নয়, তিনি ছিলেন সুস্বাস্থ্যের অধিকারী এবং তার শারীরিক শক্তি ছিল অসাধারণ। এই জরিপের কাজ সম্বন্ধে ‘আর্য্যদর্শন’ পত্রিকা লিখেছে – “...... যখন রাধানাথ এই বিভাগে প্রবিষ্ট হন তখন জরিপ করিবার অনেক প্রথা অনাবিষ্কৃত ছিল। দেশের অবস্থাও অতি অল্পই জানা ছিল। যে যে কারণে গণনা ভুল হইত সে সকলও অজ্ঞাত ছিল। সে আমলে জরিপ করিতে যে কত কষ্ট সহ্য করিতে হইত তাহা কর্ণেল এভারেষ্টের সুবৃহৎ গ্রন্থে বিশেষ করিয়া লেখা আছে। বরফ, হিম, জল, কাদা, বৃষ্টি ভোগ করিয়াও রাত্রি জাগরণ করিয়া প্রফুল্ল চিত্তে কয়জন লোক কাজ করিতে পারে!” ......।

অকৃতদার রাধানাথের ধ্যান জ্ঞানই ছিল তার আরব্ধ কাজ। হয় ত সেজন্যই “রাধানাথই প্রথম বাঙালী যিনি সার্ভে বিভাগে প্রবিষ্ট হন। তাঁহার পেন্সন গ্রহণের পর আর কোন দেশীয় লোক ইহার কর্ম্মচারী নিযুক্ত হন নাই।” ১৮৪৩ সালের ডিসেম্বর মাসে জর্জ এভারেষ্ট তার মূল্যবান গ্রন্থ “An account of the measurement of two sections of the meridional arc of India” শেষ করে অবসর নিয়ে দেশে ফিরে যান। ১৮৪৭ সালে তার সে বইটি প্রকাশিত হলে তিনি রাধানাথের কাজের স্বীকৃতি স্বরূপ বইটির এক কপি তাকে পাঠিয়ে দেন, তাতে স্বহস্তে লেখা – “ Babu Radhanath …. in acknowledgement of his active participation in the survey.” জর্জ এভারেষ্ট তখন পৃথিবীতে জরিপের কাজে পয়লা নম্বর প্রযুক্তিবিদ ও বৈজ্ঞানিক বলে স্বীকৃত। তার কাছ থেকে এরকম সম্মান লাভ রাধানাথের কাজের উৎকর্ষ ও অবদানকেই তুলে ধরে।

জর্জ এভারেষ্টের পর সারভেয়ার জেনারেল (Surveyor General) হয়ে আসেন অ্যান্ড্রু ওয়া (Andrew Waugh)। তিনিও রাধানাথের গণিতের জ্ঞান ও কর্মদক্ষতার প্রশংসা করতেন। ১৮৫১ সালের ১৫ই এপ্রিল বৃটিশ পার্লামেন্টে ভারতের জি. টি. এস. সম্বন্ধে রিপোর্ট পেশ করার সময় অ্যান্ড্রু ওয়া সাধারণভাবে ভারতীয়দের কাজের কথা তুলে ধরলেও বিশেষ উল্লেখ করেছেন ‘ব্রাহ্মণ বংশীয় নেটিব বাবু রাধানাথ শিকদারের, গণিতে যার জ্ঞান উচ্চ মার্গের।’ ১৯৫১ সালেই রাধানাথকে চিফ কম্পুটার (Chief Computer) পদে উন্নীত করা হয়।

অ্যান্ড্রু ওয়া রাধানাথকে বললেন পূর্ব ভারতের হিমালয়ের চূড়াগুলির দিকে নজর দিতে। হিমালয়ের ৭৯ টি শৃঙ্গের অবস্থান নির্দিষ্ট করা গিয়েছিল, তার মধ্যে ৩১ টির নামকরণও হয়েছিল। বাকি শৃঙ্গগুলি এক একটি সংখ্যা দিয়ে পরিচিত হত। জে. ও. নিকলসন (J. O. Nicholson) জরিপের সময় ১৫ নম্বর চূড়াটি চিহ্নিত করেছিলেন। তার প্রাপ্ত তথ্য কাজে লাগিয়ে জন হেনেসি (John Henesy) চূড়াটির উচ্চতা বের করার চেষ্টা করেছিলেন কিন্তু সফল হন নি। রাধানাথ এবার এই কাজে হাত লাগালেন। দেড়শ’ মাইল দূর থেকে ছয়টি বিভিন্ন অবস্থান থেকে থিওডোলাইটের (theodolite) সাহায্যে পরিমাপ সংগ্রহ করে গণিতের জটিল পদ্ধতি কাজে লাগিয়ে অবশেষে তিনি শৃঙ্গটির উচ্চতা নির্ণয়ে সফল হন। অন্যান্য সংগৃহীত তথ্যের সঙ্গে তুলনা করে তিনি নিশ্চিত হন যে এটিই পৃথিবীর সর্বোচ্চ শৃঙ্গ। কথিত আছে ১৮৫২ সালে একদিন দেরাদুনের অফিসে অ্যান্ড্রু ওয়ার ঘরে ঝড়ের মত ঢুকে রাধানাথ বলেন “স্যার, আমি হিমালয়ের সর্বোচ্চ শৃঙ্গ আবিষ্কার করেছি।” পনেরো নম্বর চূড়াটি চিহ্নিত করে সেটির উচ্চতা বের করার ক্ষেত্রে নিকলসন, হেনেসি ও রাধানাথ – এই তিন জনের ভূমিকা থাকলেও রাধানাথের কৃতিত্বই সর্বাধিক, কারণ তিনিই শৃঙ্গটির উচ্চতা সঠিক ভাবে নির্ধারণ করে এটিই যে পৃথিবীর সর্বোচ্চ শৃঙ্গ সেই সিদ্ধান্তে এসেছিলেন। তবে এ নিয়ে মতভেদ এখনও দূর হয় নি, কারণ রাধানাথের নিজের হাতে গণনা সংক্রান্ত কাগজপত্রের খোঁজ এখনও পাওয়া যায় নি। রাধানাথের পরিমাপ করা উচ্চতার মান বেরিয়েছিল ২৯০০০ ফুট কিন্তু পাছে সংখ্যাটির বিন্যাস দেখে লোকের সন্দেহ হয় যে এটা একটা আনুমানিক সিদ্ধান্ত, তাই এটির মান পরিবর্তন করে করা হয় ২৯০০২ ফুট। ১৮৫৫ সালে অন্য একটি জরিপের দল একই পদ্ধতি অবলম্বন করে চুড়াটির উচ্চতা নির্ণয় করেছিল এবং সেটা বেরিয়েছিল ২৯০২৯ ফুট।

১৫ নং চুড়াটির উচ্চতা পরিমাপ করতে গিয়ে রাধানাথের সব চেয়ে বড় অবদান ছিল বায়ুমন্ডলে আলোর প্রতিসরণের (refraction) জন্য প্রয়োজনীয় সংশোধন নির্ণয় করা। বায়ুমণ্ডলে উচ্চতার সঙ্গে বাতাসের ঘনত্ব বদলে যাওয়ায় আলোর গতিপথ সরলরেখা না হয়ে বেঁকে যায়। এই কারণে, থিওডোলাইট দিয়ে মাপার সময় উচ্চতা যা বেরোয় প্রকৃত উচ্চতা সেটা নয়, আলোর প্রতিসরণের জন্য সংশোধন কাজে লাগিয়ে সঠিক উচ্চতা পরিমাপ করাটাই রাধানাথের মূল কৃতিত্ব। রাধানাথ তার রিপোর্ট পেশ করার পরেও কিন্তু পৃথিবীর সর্বোচ্চ শৃঙ্গ আবিষ্কারের খবর প্রকাশিত হয় নি। হয়ত খোঁজ খবর নেওয়া হচ্ছিল সত্যি এটাই সব চেয়ে উঁচু কি না, নাকি এর চেয়েও উঁচু শৃঙ্গ কোথাও রয়েছে। যাই হোক, এ সম্বন্ধে আনুষ্ঠানিক ঘোষণা হয় ১৮৫৪ খৃষ্টাব্দে। অবশ্য সেখানে রাধানাথের কোন উল্লেখ ছিল না। স্বনামধন্য বিজ্ঞানী মেঘনাদ সাহা ‘Progress of Physics in Past Twenty-five Years’-এ লিখেছেন –“১৮৫৪ সালে ট্রিগোনোমেট্রিক সারভের মুখ্য গণক ও বিশিষ্ট গণিতবিদ রাধানাথ শিকদার হিমালয়ের একটি লুকিয়ে থাকা শৃঙ্গকে নির্দিষ্ট করে, কয়েক বছর আগে পরিমাপ করা তথ্যের গাণিতিক বিশ্লেষণের দ্বারা দেখিয়েছেন যে এটিই পৃথিবীর সর্বোচ্চ শৃঙ্গ।” [অনুবাদ লেখকের]।

সর্বোচ্চ শৃঙ্গ তো নির্দিষ্ট হল, কিন্তু নামকরণ কি হবে? জর্জ এভারেস্ট একটি নিয়ম করেছিলেন যে নতুন কোন শৃঙ্গ তার স্থানীয় নামেই পরিচিত হবে, এভাবেই হয়েছে কাঞ্চনজঙ্ঘা, নন্দাদেবী ইত্যাদি নাম। কিন্তু ১৫ নং শৃঙ্গটির একটি অসুবিধা হল এটি নেপাল ও তিব্বতের মাঝে অবস্থিত। এই দুই দেশে শৃঙ্গটির আলাদা আলাদা নাম রয়েছে, কোন একটি জায়গার নাম বেছে নিলে অন্য দেশ ক্ষুব্ধ হতে পারে। দেখে শুনে কর্ণেল ওয়া রয়্যাল জিওগ্রাফিক সোসাইটিকে একটি চিঠি লিখে ১৫ নং শৃঙ্গটির নাম জর্জ এভারেস্টের নামে মাউন্ট এভারেস্ট করার প্রস্তাব পাঠালেন। প্রস্তাবটি গৃহীত হল এবং সর্বোচ্চ শৃঙ্গের নাম হয়ে গেল মাউন্ট এভারেস্ট। শৃঙ্গটির উচ্চতা নির্ণয়ে এভারেস্টের কোন ভূমিকাই ছিল না অথচ তার নামেই নামকরণ হ’ল , রাধানাথ উপেক্ষিতই রয়ে গেলেন।

রাধানাথ শুধু যে জরিপের কাজই করেছেন তা নয়। ১৯২৯ সালে কলকাতার পার্ক ষ্ট্রীটে সার্ভে অফিস চত্তরেই জর্জ এভারেস্ট একটি পরিকাঠামো সহ আবহাওয়া অফিস খুলেছিলেন। ব্যবসাবাণিজ্যের সুবিধার জন্যই এটির প্রয়োজনীয়তা ছিল। এই অফিসের প্রধান ছিলেন ভি. এন. রীস (V. N. Rees)। তার অবসর গ্রহণের পরে ১৮৫২ সালে রাধানাথ সেই পদে নিযুক্ত হন। একই সঙ্গে তিনি চিফ কম্প্যুটার হিসাবে সার্ভের কাজ এবং সুপারিনটেনডেন্ট পদে আবহাওয়া অফিসের কাজ সামলাতেন। ভার নিয়েই রাধানাথ এই বিভাগটি আধুনিক ভাবে গড়ে তোলার কাজে মন দেন। ১৮৫২ সালেই তিনি দৈনিক আবহাওয়ার পূর্বাভাস প্রকাশ করার ব্যবস্থা করেন। ১৮৫৩ সাল থেকে আবহাওয়া সংক্রান্ত তথ্য নিয়মিত ভাবে প্রকাশিত হতে থাকে। জাহাজ চলাচলের ক্ষেত্রে এসবের একটি উল্লেখযোগ্য ভূমিকা ছিল। তবে রাধানাথের সব চেয়ে গুরুত্বপূর্ণ অবদান ছিল বায়ুর চাপ নির্ণয়ে ব্যারোমিটার রিডিং নেবার সঠিক পদ্ধতির উদ্ভাবন। তাপমাত্রার ওঠা নামার সঙ্গে ব্যারোমিটারের সঙ্গে যে পিতলের স্কেলটি থাকে সেটির দৈর্ঘের পরিবর্তন এবং সেই সঙ্গে ব্যারোমিটারের ভেতরের পারদের সঙ্কোচন-প্রসারণের জন্য আপাত ভাবে যে রিডিং পাওয়া যায় সেটির যথাযথ সংশোধন না করলে গৃহীত মানের শুদ্ধতা বজায় থাকবে না। রাধানাথ এই সংশোধনের জন্য একটি তালিকা প্রস্তুত করেছিলেন। এ ধরণের তালিকা বিদেশে ছিল, কিন্তু রাধানাথ তার নিজের মত করে এটি প্রস্তুত করেছিলেন। ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষ তার এই উদ্ভাবনী ক্ষমতার বরাবরই প্রশংসা করতেন।

স্বীকৃতি ও উপেক্ষা

রাধানাথের গণিত ও পদার্থবিদ্যার জ্ঞান এবং তার উদ্ভাবনী শক্তি ও অসাধারণ কর্মক্ষমতাকে সার্ভে অফিসের সহকর্মীরা এবং ইংরেজ কর্তৃপক্ষ প্রশংসা ও শ্রদ্ধার দৃষ্টিতেই দেখেছেন। ১৮৫১ সালের ১৫ই এপ্রিল বৃটিশ পার্লামেন্টে জি. টি. এস. সম্বন্ধে যে রিপোর্ট পেশ করা হয় তাতে অন্যান্য কর্মীদের মধ্যে রাধানাথকে বিশেষ ভাবে স্বীকৃতি জানানো হয় – “... Among them may be mentioned as most conspicuous for ability, Babu Radhanath Sikdar, a native of India of Brahminical extraction whose mathematical attainments are of the highest order.” জর্জ এভারেস্ট রাধানাথের প্রশংসা করে তার বাবাকে যে চিঠি দিয়েছিলেন তার উল্লেখ আগেই করা হয়েছে। অ্যান্ড্রু ওয়াও রাধানাথের কাজের ভূয়সী প্রশংসা করেছেন। রাধানাথের গণিতের জ্ঞান ও অন্যান্য অবদানের স্বীকৃতি দিয়ে জার্মানীর ব্যাভেরিয়ান শাখার বিখ্যাত ‘ফিলোসফিক্যাস সোসাইটি’ (Philosophical Society) তাকে তাদের সদস্য নির্বাচিত করেন। এদেশীয়দের মধ্যে তিনিই প্রথম এই সম্মান লাভ করেন।

এসব তথ্য হয় ত পুরনো নথিপত্র ঘাঁটলে এখনও পাওয়া যাবে, কিন্তু এসব কে মনে রাখে ? সর্বোচ্চ শৃঙ্গটির নামকরণের সময়ে রাধানাথ উপেক্ষিত রইলেন কেন ? এভারেস্টের সঙ্গেও তো তার নামটি যুক্ত করা যেত। এটাই হল ব্রিটিশ ঔপনিবেশিক সরকারের মানসিকতা। কোন আবিষ্কারের সঙ্গে এদেশের কারো নাম জড়িয়ে রাখা বা কোন বিভাগের সর্বোচ্চ পদে এদেশের কাউকে নিয়োগ করতে তাদের অনাগ্রহ ও অনীহা ছিল অপরিসীম। পরোক্ষ ভাবে এর উল্লেখ পাওয়া যায়। যেমন সিডনি জেরাল্ড বুরার্ড (Sidney Gerald Burrard), যিনি ১৯১১ থেকে ১৯১৯ পর্যন্ত ভারতের সার্ভেয়ার জেনেরাল ছিলেন, তিনি তার একটি প্রবন্ধে উল্লেখ করেছেন –“About 1852 the chief computer of the office at Calcutta informed Sir Andrew Waugh that a peak designated XV had been found to be higher than any other hitherto measured in the World. The peak was discovered by the computers to have been observed from six different stations; on no occasion had the observer suspected that he was viewing through the telescope the highest point of the earth”. এখানে কিন্তু রাধানাথের নাম উল্লেখ করা হ’ল না। পরোক্ষ ভাবে বলা হয়েছে ‘the chief computer of the office at Calcutta’, তবু সোজাসুজি রাধানাথের নাম নেই, তবে যাকে বলেছিলেন সেই অ্যান্ড্রু ওয়ার নাম কিন্তু রয়েছে।

নাম মুছে ফেলার চেষ্টার এখানেই শেষ নয়। ১৮৫১ খ্রীষ্টাব্দে ‘ম্যানুয়াল অফ সারভেয়িং’ (Manual of Surveying) নামে একটি বই প্রকাশিত হয়। বইটি ছিল সারভেয়িং-এর কাজে অত্যন্ত প্রয়োজনীয়। এই বইটির বিজ্ঞান সংক্রান্ত অংশটি রাধানাথের লেখা। বইটি পাঁচটি অংশে বিভক্ত ছিল। বইটির সূচনায় লেখা হয়েছিল – “In Parts III (Surveying) and V, the computers have been largely assisted by Babu Radhanath Sikdar, distinguished head of the computing department of the GTSI. The Chapters 15, 17 up to 21 inclusive of Part III, and the whole of Part V are entirely by his own. Besides he compiled a set of auxiliary tables for the surveying department which were found to be greatly useful.” বোঝাই যায় বইটি রচনায় মূল কৃতিত্ব রাধানাথের, সেটি স্বীকারও করা হয়েছে। বইটির দ্বিতীয় সংস্করণ প্রকাশিত হয় ১৮৫৫ সালে, সেখানেও সূচনা অংশটি অপরিবর্তিতই থেকেছে; কিন্তু রাধানাথের মৃত্যুর পরে যে তৃতীয় সংস্করণটি বেরোয়, তাতে রাধানাথের নামের কোন উল্লেখ নেই। এই অনুল্লেখ নিশ্চয়ই অনিচ্ছাকৃত নয়। তবে ইংরেজদের মধ্যেও রাধানাথের গুণগ্রাহী অনেকেই ছিলেন, তারা কিন্তু এই পক্ষপাতিত্ব মেনে নিতে পারেন নি। জি. টি. এস.-এর ডেপুটি সুপারিনটেনডেন্ট লেফটেন্যান্ট কর্ণেল ম্যাকডোনাল্ড (Lieutenant Colonel Macdonald) দৈনিক ফ্রেন্ড অফ ইন্ডিয়া পত্রিকার ১৭ই ও ২৪শে জুন সংখ্যায় তৎকালীন সারভেয়ার জেনারেল এইচ. এল. থুইলিয়ারের (H. L. Thuillier) কঠোর সমালোচনা করেন। এতে ফল হ’ল বিপরীত। রাধানাথের নাম অন্তর্ভুক্ত হবার বদলে ম্যাকডোনাল্ডের উপরেই শাস্তির খাঁড়া নেমে আসে। তার পদের অবনতি ঘটিয়ে তাকে দ্বিতীয় শ্রেণীর ডেপুটি সুপারিনটেনডেন্ট নিযুক্ত করা হয়। রাধানাথ অবশ্য তখন আর ইহজগতে নেই। অবশ্য আমরাই বা তেমন আর কি করেছি! তার শেষ বাসস্থান চন্দননগরের একটি ছোট রাস্তা তার নামে চিহ্নিত হয়েছে। ভারত সরকার ২০০৪ সালের ২৭শে জুন তার স্মরণে একটি ডাক টিকিট প্রকাশ করেছেন এবং সম্প্রতি কলকাতার জাতীয় গ্রন্থাগারে তার নামাঙ্কিত একটি ফলক স্থাপিত হয়েছে।

রাধানাথ কোন কারণে হয়ত সারভে বিভাগ থেকে সরে যেতে চাইছিলেন। এর কারণ অনুমান করা শক্ত। এভারেস্টের আমলে ডেপুটি কালেক্টরের পদে এবং দ্বিতীয়বার অ্যান্ড্রু ওয়ার সময়ে ম্যাজিস্ট্রেটের পদের জন্য তিনি আবেদন করেছিলেন। কিন্তু সার্ভে বিভাগে তিনি ছিলেন অপরিহার্য, অতএব কোন বারই তাকে ছাড়া হয়নি, একবার নিয়মের দোহাই দিয়ে এবং দ্বিতীয়বার তার মাইনে বাড়িয়ে দিয়ে তাকে আটকে রাখা হয়। যে সব পদের জন্য রাধানাথ দরখাস্ত করেছিলেন সে সব ক্ষেত্রে তার গণিত সংক্রান্ত কোন জ্ঞানই কাজে লাগত না, কাজেই কেন তিনি চলে যেতে চাইছিলেন সেটা স্পষ্ট নয়। আপাত দৃষ্টিতে তার প্রশংসা করা হলেও তাকে তার প্রাপ্য স্বীকৃতি থেকে বঞ্চিত করাই কি এর কারণ ?

কিছু বৈশিষ্ট্য

রাধানাথের ইংরাজি লেখার মান ছিল অতি উৎকৃষ্ট। অতি অল্প বয়স থেকেই তিনি সুন্দর রচনাশৈলীর পরিচয় দিয়েছেন। তার উচ্ছ্বাসহীন উচ্চ মানের লেখা সে সময়ের পত্র-পত্রিকাতেও প্রশংসিত হয়েছে।

রাধানাথের খাদ্যাভাস ছিল একটু অদ্ভুত ধরণের। তিনি প্রচুর পরিমাণে গোমাংস ভক্ষণ করতেন। তার মতে গোমাংস ভক্ষণ না করলে কোন জাতিই বড় হতে পারে না। তার শারীরিক ও মানসিক ক্ষমতা ছিল অসাধারণ। ছাত্রাবস্থাতেই তিনি ছিলেন অত্যন্ত বলবান ও দৃঢ় শরীরের মানুষ এবং প্রায়ই নাকি গোরাদের সঙ্গে মারামারিতে জড়িয়ে পড়তেন। ধর্ম সম্বন্ধে তার কোন গোঁড়ামি ছিল না। ইসলাম বা হিন্দু কোন ধর্মের দ্বারাই তিনি প্রভাবিত হন নি। জন্মসূত্রে প্রোটেস্টান্ট খ্রীষ্টান হলেও খৃষ্টধর্মও তার মনে তেমন রেখাপাত করে নি। তিনি ছিলেন সব ধরণের প্রাতিষ্ঠানিক ধর্মবিরোধী মুক্তমনের মানুষ। অকৃতদার রাধানাথ সারা জীবন শুধু কাজ নিয়েই ব্যস্ত থেকেছেন। রাধানাথ ইংরাজিতে তার নামের বানান লিখতেন Radhanath Sickdhar.

রাধানাথ ছিলেন অকুতোভয় অসমসাহসী মানুষ। অন্যায়ের খোলাখুলি প্রতিবাদ করতে তিনি পিছপা হতেন না। ১৮৪৩ সালে দেরাদুনে কর্মরত অবস্থায় তিনি একবার ম্যাজিস্ট্রেট ভ্যান্সিটার্টের সঙ্গে বিবাদে জড়িয়ে পড়েন। ভ্যান্সিটার্ট তার বিভাগের মাইনে করা লোকদের দিয়ে ব্যক্তিগত কাজ করাতেন এবং তারা আপত্তি জানালে তিনি চাবুক মারতেন। এই অমানবিক কাজের প্রতিবাদ করায় জর্জ এভারেস্টের কাছে রাধানাথের বিরুদ্ধে সাক্ষী সহ অভিযোগ পেশ করা হয়। অবশ্য এতে রাধানাথের কোন ক্ষতি হয়েছিল কিনা জানা যায় নি।

সাহিত্য-পত্রিকা প্রকাশ

রাধানাথ দীর্ঘদিন বাংলার বাইরে থাকায় ইংরেজি ভাষায় যেমন দক্ষ হয়ে উঠেছিলেন, বাংলা ভাষার ক্ষেত্রে তেমন হয় নি। ‘তত্ত্ববোধিনী পত্রিকা’ ছিল তখনকার একটি নাম করা পত্রিকা। সম্পাদক ছিলেন অক্ষয়কুমার দত্ত। গভীর তত্ত্ব বিষয়ক রচনা এতে প্রকাশিত হত। কিন্তু এই সংস্কৃত-ঘেঁষা বাংলা ছিল রাধানাথের না-পসন্দ। তার মত ছিল, যে লেখা মেয়েরা বুঝতে পারে না সেটা বাংলাই নয়। তিনি ছিলেন কথ্য ভাষায় রচনা প্রকাশে আগ্রহী। এটার রূপ দিতে তিনি বন্ধু প্যারীচাঁদ মিত্রকে সঙ্গে নিয়ে ‘মাসিক পত্রিকা’ ( ‘অবসরে’ এটি পুরানো দিনের পত্রিকা প্রসঙ্গে আলোচিত হয়েছে ) নামে একটি পত্রিকা প্রকাশ করেন। পরে অবশ্য প্যারীচাঁদ ‘আলালের ঘরের দুলাল’ লিখে প্রসিদ্ধ হয়েছেন। মেয়েদের শিক্ষার বিষয়ে রাধানাথ ছিলেন অত্যন্ত উৎসাহী। বাস্তবিকই ‘মাসিক পত্রিকা’য় প্রকাশিত লেখা পড়তে অল্পশিক্ষিত লোকের কোন অসুবিধাই হত না। রাধানাথও এতে লিখতেন। বহু পরে কথ্য ভাষায় গদ্য রচনার যে রীতি চালু হয়েছিল, এটিই হয় ত তার প্রথম পদক্ষেপ।

শেষ জীবন

চাকরী থেকে অবসর নিয়ে তিনি চন্দননগরের গোঁদলপাড়ায় গঙ্গার পারে বাড়ি তৈরি সেখানেই বসবাস করতে শুরু করেন। ছোট ছোট ছেলেমেয়েদের তিনি খুব ভালবাসতেন। শেষ জীবনে আত্মীয় স্বজন বন্ধুবান্ধব ও ছোটদের সঙ্গেই তার দিন কাটত। ১৮৭০ সালের ১৭ই মে ৫৭ বছর বয়সে আধুনিক ভারতের প্রথম বৈজ্ঞানিকের জীবনাবসান হয়।

তথ্যসূত্র

১। দ্বি-শতবর্ষে রাধানাথ শিকদার – আশীষ লাহিড়ি।
২। আর্য্যদর্শন পত্রিকা (১২৯১ বঙ্গাব্দ)।
৩। Himalayan Journal 33 (1975)।
৪। Radhanath Shikodar-First Scientist of Modern India – Utpal Mukhopadhyay.
৫। অন্যান্য পত্র-পত্রিকায় প্রকাশিত প্রবন্ধ।


লেখক পরিচিতি - বহু বছর বি.ই. কলেজে (এখন ইন্ডিয়ান ইন্সটিটিউট অফ ইঞ্জিনিয়ারিং সায়েন্স এন্ড টেকনোলজি, শিবপুর ( IIEST,Shibpur ) অধ্যাপনা করেছেন। কিছুদিন হল অবসর নিয়েএখন সেখানে অতিথি অধ্যাপক হিসেবে আছেন। অ্যাপ্লায়েড মেকানিক্স নিয়ে গবেষণা করলেও একাধিক বিষয়ে আগ্রহ রয়েছে - জ্যোতিষশাস্ত্র, পুরনো কলকাতার সংস্কৃতি, ইত্যাদি। অবসর সময়ে 'অবসরে'র সঙ্গে সময় কাটান।

 

(আপনার মন্তব্য জানানোর জন্যে ক্লিক করুন)

অবসর-এর লেখাগুলোর ওপর পাঠকদের মন্তব্য অবসর নেট ব্লগ-এ প্রকাশিত হয়।

Copyright © 2014 Abasar.net. All rights reserved.