রাক্ষস। সত্যযুগে এই চার্বাক রাক্ষস বদরিকাশ্রমে তপস্যা করে ব্রহ্মার কাছ থেকে অভয়বর পেয়েছিলেন। সেই বর পেয়ে তিনি দেবতাদের ওপরে অত্যাচার শুরু করেন। দেবতারা ব্রহ্মার শরণাপন্ন হলে তিনি বলেন যে,এই রাক্ষস দুর্যোধন নামে এক রাজার সখা হবে এবং ব্রাহ্মণদের অপমান করবে। সেই ব্রাহ্মণদের তেজেই একদিন সে ভäম হবে। কুরুক্ষেত্র-যুদ্ধের পর চার্বাক ভিক্ষুকের ছদ্মবেশে যুধিষ্ঠিরের কাছে এসে মিথ্যে করে বলেন যে,জ্ঞাতি ও গুরুজনদের হত্যা করার জন্য দ্বিজগণ যুধিষ্ঠিরের ওপর অত্যন্ত অসন্তুষ্ট হয়েছেন। মৃত্যুই যুধিষ্ঠিরের পক্ষে শ্রেয়। সেই শুনে যুধিষ্ঠির যখন ব্যাকুল হয়ে বিপ্রদের প্রসন্ন করতে গেলেন,তখন বিপ্ররা বুঝতে পারলেন যে,ভিক্ষুকটি আসলে রাক্ষস চার্বাক। ওঁদের নাম ব্যবহার করে চার্বাক মিথ্যে কথা বলেছেন। বিপ্রদের সন্মিলিত ক্রোধে চার্বাক ভäম হয়ে গেলেন।