শঙ্কর দা

সুজন দাশগুপ্ত

[লেখক পরিচিতি: বহু বছর ধরে আমেরিকা প্রবাসী। এক সময়ে পত্রপত্রিকায় নিয়মিত লিখতেন - এখন কালে-ভদ্রে। ধাঁধা ও রহস্যকাহিনীর ওপর প্রায় গোটা কুড়ি বই আছে, যার মধ্যে কয়েকটি সম্পাদিত গ্রন্থ। গোয়েন্দা একেনবাবু-র মানসপিতা; ওয়েব ম্যাগাজিনদ্বয়, https://www.abasar.net এবং http://www.bengalimystery.com-এর প্রতিষ্ঠাতা ও সম্পাদক। ]

অবসর-এর নবজন্মের প্রথম সংখ্যায় ডক্টর শঙ্কর সেন সম্পর্কে দু-চার কথা লেখার জন্য সম্পাদকের হুকুম। ওঁর বিশাল কর্মকাণ্ড সম্পর্কে আমি কতটুকু জানি! তাই সে সবের মধ্যে না গিয়ে আদি অবসর-এর প্রায় জন্ম-লগ্ন থেকে যে-ভাবে উনি যুক্ত ছিলেন সেই নিয়েই লিখছি।

ডক্টর শঙ্কর সেনের সঙ্গে আমার প্রথম পরিচয় সত্তর দশকে,  শঙ্কর দা তখন বি ই কলেজের অধ্যাপক। দেশে বেড়াতে গেলে দাদার বি ই কলেজের কোয়ার্টারে গিয়ে উঠতাম। তারপর তো উনি যাদবপুরে ভাইস চ্যান্সেলর হয়ে গেলেন, পরে বিদ্যুৎমন্ত্রী। যোগাযোগ হওয়ার তেমন অবকাশ ছিল না। নব্বই দশকে দেশে মোবাইল ফোন আসার প্রস্তুতি-পর্বে দিল্লীতে কিছুদিন চাকরি-সূত্রে ছিলাম। তখন কলকাতায় গেলে বার কয়েক দেখা হয়েছে। মোবাইল ফোন নিয়ে দেশে আমাদের কী কাজ, তাই নিয়ে বেশ কিছুক্ষণ একদিন কথাও হল – এইটুকুই।

দু-হাজার সালের গোড়ার দিকে উনি ক্যানাডায় এসেছিলেন ওঁর বড় মেয়ের কাছে। আমি আর সুমিত দা তখন সবে অবসর ওয়েবসাইট চালু শুরু করেছি। বাংলা ওয়েব টেকনোলজি-তে তখন অনেক সমস্যা ছিল। সুমিত দা ওর উদ্ভাবিত ‘হরফ’ ফন্টটা কী ভাবে কাজে লাগানো যায় … সেই সব নিয়ে মাথা ঘামাচ্ছিল, আমি কন্টেন্ট নিয়ে। সুমিত দা ছিল আবার বি ই কলেজে শঙ্কর দা-র অন্যতম প্রিয় ছাত্র। কোথাও অবসর-এর খবর পেয়ে ফোনেই জানতে চাইলেন, এটা নিয়ে আমরা ঠিক কী করতে চাইছি। অবসর-এর পিছনে আমার একটা উদ্দেশ্য ছিল সহজ বাংলায় মেয়েদের জন্য প্রয়োজনীয় তথ্য দেওয়া – স্বাস্থ্য, আইন, ইত্যাদি বিষয়ে। আমার স্ত্রী শমীতাই এটা আমার মাথায় ঢুকিয়েছিল। শঙ্কর দা-র কথাটা খুব মনে ধরল। ‘বাঃ, দেশের গ্রামাঞ্চলে স্কুল-লাইব্রেরিতে ভালো বই-পত্তর মেলে না, ইন্টারনেট আসতে শুরু করেছে, শিগগিরি হয়তো চেষ্টা-চরিত্র করে সোলার বা অন্যান্য পাওয়ার দিয়ে কম্পিউটার চালানো যাবে … এইসবও মাথায় রেখো। সুমিত-দাও বলল, অবসর-কে একটা এনসাইক্লোপেডিয়াইক সাইট করলে কেমন হয়?

অবসর-এর একটা উপদেষ্টা কমিটি করা হল। শঙ্কর দা-কে ধরলাম, ‘আপনি সভাপতি হন।’

‘না, না, সভাপতি কেন? দলে আছি।’

অনেক কষ্টে রাজি করলাম।

বঙ্গীয় সাহিত্য পরিষৎ-এর পবিত্র সরকারের সঙ্গে যোগাযোগ করে অনুমতিও নেওয়া হল অনলাইনে ‘ভারতকোষ’ তোলার। কিন্তু হাজার হাজার এন্ট্রি টাইপ করবে কে?

‘তাতে কি? আমি সাহায্য করব।’

শঙ্কর-দা বেশ কিছুদিন আগেই মন্ত্রিত্ব ছেড়েছেন।

‘কি বলছেন শঙ্কর দা, আপনি কেন করবেন?’

‘আরে ছাড়ো, বসেই তো আছি! বসে বসে কী করব?’

আর কি করব মানে! মন্ত্রিত্ব ছেড়েছেন ঠিকই, কিন্তু অজস্র কাজে জড়িয়ে আছেন – একবার উষাগ্রামে যাচ্ছেন, একবার সিকিমে  … বিভিন্ন এনজিও-তে গিয়ে গাইড করছেন, উৎসাহ দিচ্ছেন। এই জন্যেই বোধহয় কিছুদিনের মধ্যেই আমার থেকে শমীতার সঙ্গেই কথাবার্তা হত বেশি। শমীতাকে স্নেহভরে ‘ঝাঁসির রানি’ ডাকা শুরু করলেন। ওঁর বাড়ি গেলেই শমীতা বলত, ‘শঙ্করদা চা খাব।’

নিজের হাতে চা করে নিউ জার্সিতে শমীতাদের গড়া ‘মানবী’-তে মেয়েদের সমস্যা নিয়ে কী ধরণের কাজকর্ম হচ্ছে শুনতেন।

সুমিত-দা একদিন বলল, ‘হ্যাঁরে, বাংলা সিনেমার একটা ডাটাবেস করলে কেমন হয়?’

তখন IMDB সবে শুরু হয়েছে, কিন্তু বাংলা সিনেমার তথ্য সেখানে প্রায় কিছুই নেই। সুমিত দার বেশ কিছু বই ছিল, সেগুলো থেকেই কিছু একটা খাড়া করা যায়, কিন্তু আরও রিসার্চের প্রয়োজন। সুমিত-দা ইতিমধ্যেই একটা ডেমো ডাটাবেস স্ট্রাকচার বানিয়ে ফেলল। কিছু তথ্য তাতে ঢোকালাম, যাতে ব্যাপারটা বোঝানো যায়। কিন্তু তথ্য তো অজস্র, পাওয়া যাবে কোথায়? আর সেগুলো ডাটা-বেসে ঢোকানোও তো অনেক কাজ, সেটাই বা করবে কে? একটা প্রজেক্ট যদি খাড়া করা যায় কোনও ইউনিভার্সিটির জন্য … শঙ্কর দা-কে জিজ্ঞেস করা যেতে পারে।

শঙ্কর-দা-কে বলতেই বললেন, ‘দাঁড়াও দাঁড়াও, যাদবপুরে তো ফিল্ম ডিপার্টমেন্ট চালু করেছিলাম। সঞ্জয় তো এখন ওখানেই পড়াচ্ছে!’

পরের দিন শঙ্কর দার বাড়িতে গিয়ে দেখি সঞ্জয় মুখোপাধ্যায় বসে আছে।

ডেমো দেখে সঞ্জয় এক্সাইটেড। ‘হ্যাঁ হ্যাঁ করা তো যেতেই পারে।’

‘মৃণাল সেনকে জড়ালে কেমন হয় এই ব্যাপারে?’ শঙ্কর দা জানতে চাইলেন।

‘উনি কি এসবে সাড়া দেবেন?’

‘কথা বলতে সমস্যা কি? আমি ওঁকে ভালো করেই চিনি।’

‘একটা প্রপোজালও তৈরি করো, জয়ন্ত চৌধুরীর সঙ্গেও কথা বলা যেতে পারে। যেতে পারবে আমার সঙ্গে?’

‘তিনি কে?’

‘ওই যে যিনি ভারতের সেনা-প্রধান ছিলেন, এখন রিটায়ার করে রাজ্যসভার মেম্বার। সল্ট লেকে থাকেন। হয়তো সাহায্য করবেন।’

নানান চিন্তা শঙ্কর-দা-র মাথায়।

আমি তো কাউকেই চিনি না। সুমিত-দা দেশে আসতে পারছে না। শঙ্কর-দার লেজুড় হয়ে গেলাম সব জায়গায়।

পিয়ারলেসের এস কে রায়কেও ধরলাম। অনেকেই ব্যাপারটা বুঝতে পারছেন না। আসলে ইন্টারনেট জিনিসটাই তখনও সবার কাছে পরিষ্কার নয়।

টুকরো টুকরো এরকম অনেক কথা মনে পড়ছে …

এগুলো লিখলাম শঙ্করদাকে বোঝাবার জন্য। উনি ছিলেন ভিশানারি, লক্ষ্যে স্থির থেকে অদম্য উৎসাহ নিয়ে লড়াই করতেন। ইন্টারনেট-এ বাংলায় তথ্য সংরক্ষণের মূল্য উনি যে-ভাবে বুঝতে পেরেছিলেন, অন্যরা তা পারেননি। মাঝে মাঝে হতাশ হয়ে যেতাম। শঙ্কর-দাকে বলতাম, ‘মনে হচ্ছে শুধু শুধুই অনেক সময় নষ্ট করছি!’

‘সুজন, হতাশ হলে চলবে না, ‘যদি ডাক শুনে কেউ না আসে, একলা চল রে।’’

দেশে গিয়ে আমার প্রথম কাজ ছিল শঙ্কর দাকে একটা ফোন করা।

‘কি করছ? বাড়িতে আছি, চলে এসো।’

দুপুরে গেলে লাঞ্চ না খাইয়ে ছাড়তেন না।

ভাবতে কষ্ট হয়, শঙ্কর-দা নেই। দেশে গেলে প্রথম ফোনটা কাকে করব? শেষ কথা হয়েছিল এদেশ থেকে।

‘অবসর আর চালাতে পারা যাচ্ছে না, শঙ্কর দা! আমার চোখ নিয়ে সমস্যা, সুমিত দার পক্ষেও একা সামলানো কঠিন। তবে খুঁজছি কাদের ভার দেওয়া যায়, যাতে লেখাগুলো থেকে যায়।’

খুশি হয়েছিলেন শুনে।

একটাই আফসোস নতুন অবসর শঙ্কর দা দেখে যেতে পারলেন না।

লেখকের অন্য লেখা:

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

সর্বশেষ পোস্ট

চুনী গোস্বামী: ক্রীড়াপ্রেমী স্কুল-প্রাক্তনীর চোখে

কলরব রায়

কিক অফ –  গেছেন পিকে, গেছেন চুনী, গেলেন বলবীর, স্বর্গের মেন স্টেডিয়ামে বাড়ছে ক্রমেই ভীড়। ইন্দ্রজ্যেঠু করো কিছু লাইভ টেলিকাস্ট, আমরা যাতে দেখতে পারি সেই গ্লোরিয়াস পাস্ট। __ “ছড়াbituay”: ২৬শে মে, ২০২০ [বলবীর সিং মারা যাওয়ার পরদিন]   ফেসবুকে ওপরের এই পোস্টটা করেছিলাম – ওটা ছিলো আমার বহুমুখী এবং বহু-বিলম্বিত প্রতিক্রিয়া। সুবিমল (চুনী) গোস্বামী যে আর ইহজগতে […]

Read More

প্রিয় তারিক ভাই

প্রিয়াংকা আচার্য্য

 আপনার সঙ্গে আমার বেশ কিছু ছবি আছে। এটা সবচেয়ে সুন্দর। আমার খুব প্রিয়। তবে ছবিকে ঘিরে এমন অপ্রিয় এক শোক আঙুল নিঙড়ে যে এতো অসময়ে বের হবে তা কে জানতো!   আপনি ছিলেন আমার কৈশোরের ‘রিয়েল হিরো’- মুক্তির গান ছবির মোটা ফ্রেমের আড়ালে তীক্ষ্ণ দৃষ্টির সেই তেজদীপ্ত ছেলেটি। পরিচয় হওয়ার অনেক পরে জেনেছি যে আপনিই […]

Read More

বিদায় তারিক ভাই, বিদায়

সুজন দাশগুপ্ত

এই মাত্র খবর পেলাম, বন্ধু জিয়াউদ্দীন তারিক আলি আর নেই। কোভিড ১৯-এ আক্রান্ত হয়ে সোমবার সকালে বাংলাদেশে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেছে। ‘৭১ সালে বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধে অংশগ্রহণকারী তারিক আলী ছিলেন একজন উদার মনের মানুষ। বাংলাদেশে বহু কর্মকাণ্ডে তিনি নিবিড় ভাবে যুক্ত ছিলেন। মুক্তিযুদ্ধ যাদুঘরের অন্যতম ট্রাস্টি হিসেবে সেটিকে গড়ে তোলার কাজে ওঁর অবদান ছিল তুলনীয়। এছাড়া সম্মিলিত সামাজিক […]

Read More

মনখারাপের তারা – সুশান্ত সিংহ রাজপুত

অনিকেত সোম

প্রতিভাবান অভিনেতা সুশান্তের আকস্মিক প্রয়াণ একরাশ মনখারাপের পাশাপাশি শুধুমাত্র আমাদের ওঁর মৃত্যুর কারণের প্রতি কৌতূহল বাড়িয়ে দিল তাই নয় প্রশ্ন উঠিয়ে দিল ফিল্ম ইন্ডাস্ট্রির নোংরা রাজনীতি, অবসাদ, ফেলে আসা ভালোবাসা, জীবনে সঠিক ভালোবাসার মানুষকে অবিরত খুঁজে ফেরার সঠিক দিশার প্রতিও। কে এই SSR? একটু গুগল করলেই হয়তো তার হদিশ পাওয়া যেতে পারে। তবে আমার এই […]

Read More

কৈশোরের মুজতবা আবিষ্কার

ভাস্কর বসু

আমাদের কৈশোর কাল কেটেছে সত্তরের দশকে। সেই সময়কার বাংলা এখনকার থেকে অনেক আলাদা ছিল। তখন বাংলা ভাষার ও বাংলা মাধ্যম স্কুলের বেশ ভালো কদর ছিল। শিক্ষকরাও ছিলেন ছাত্রদরদী। শুধু পরীক্ষায় ভাল নম্বর নয়, তাদের সামগ্রিক বোধ যাতে পরিণত হয় সেদিকেও তাঁদের তীক্ষ্ণ নজর থাকতো। এছাড়া জানিনা কতটা বিশ্বাসযোগ্য হবে, সেই সময় আমাদের দক্ষিণ চব্বিশ পরগনার […]

Read More
+